১৬ জুন ২০২৪

কমবয়সিদের মধ্যে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ছে কেন?

কিশোর ডাইজেস্ট ডেস্ক
১৭ মে ২০২৪, ১৯:০০
কমবয়সিরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে ব্রেইন স্ট্রোকে। ছবি : গেটি ইমেজেস

কমবয়সিরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে ব্রেইন স্ট্রোকে। কারণটা ঠিক কী? সম্প্রতি মার্কিন বিজ্ঞানীদের একটা গবেষণা বলছে, রক্তের গ্রুপ যদি ‘এ’ (A) হয়, তাহলে ব্রেইন স্ট্রোকের আশঙ্কা আছে। যদি জীবনযাপনে অনিয়ম বাড়তেই থাকে, তাহলে এই রক্তের গ্রুপের লোকজনদের কম বয়সেই স্ট্রোক হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

মানুষের শরীরে চার প্রকার রক্তের গ্রুপ দেখতে পাওয়া যায়। এ, বি, এবি এবং ও। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে এই রক্তের গ্রুপের গুরুত্ব অপরিসীম। এই মূল বিভাগগুলো ছাড়াও বেশ কিছু বিরল রক্তের গ্রুপও দেখা যায়। সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, এই চার বিভাগের মধ্যে ‘এ’ এবং ‘ও’ গ্রুপের মানুষজনের স্ট্রোক হতে পারে। তার মধ্যে এ গ্রুপের লোকজন হাইরিস্কে রয়েছেন। নিউরোলজি জার্নালে এই গবেষণার খবর ছাপা হয়েছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, ‘এ’ রক্তের গ্রুপ হলে কমবয়সে স্ট্রোকের ঝুঁকি ১৮ শতাংশ, আর ‘ও’ রক্তের গ্রুপ হলে স্ট্রোকের সম্ভাবনা ১২ শতাংশ।

দ্য ওয়ালের প্রতিবেদন আরও জানাচ্ছে, মস্তিষ্কে রক্ত চলাচলে বিঘ্ন হলেই স্ট্রোক হয়। কোনও কারণে মস্তিষ্কের রক্তবাহী ধমনীর পথ সংকীর্ণ হয়ে বা বাধাপ্রাপ্ত হয়ে রক্ত চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়, তখন অক্সিজেনের অভাবে ব্রেইন কাজ করা বন্ধ করে দেয়। তখন যে শারীরিক অবস্থা তৈরি হয় তাকে স্ট্রোক বলে। আগে বয়স্ক লোকেদেরই বেশি হতো। এখন লাইফস্টাইলে বদল, অতিরিক্ত স্ট্রেস বা মানসিক চাপের কারণে কমবয়সিরাই বেশি আক্রান্ত।

পাঁচ উপসর্গ
১) বডি ব্যালান্স। যে লোকটা কিছু দিন আগেও সুস্থ-সচল ছিল, সে যদি আচমকা চলতে ফিরতে গেলে ব্যালান্স হারিয়ে ফেলে, শরীর বারে বারে টাল খায়, তাহলে বুঝতে হবে স্ট্রোক হয়েছে।

২) চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে এলেও সতর্ক হতে হবে। যদি দৃষ্টি ক্ষীণ হতে শুরু করে, ডবল ভিশন হয় তাহলে সেটা অ্যালার্মিং।

৩) মুখটা একদিকে বেঁকে গেলে সতর্ক হতে হবে।

৪) হাত-পা দুর্বল হয়ে যায়, শক্তি হারিয়ে ফেলাও স্ট্রোকের লক্ষণ।

৫) যদি কথা বলতে অসুবিধা হয় অথবা ঢোক গিলতে সমস্যা হয়, তখন সাবধান হতে হবে।