২৫ জুলাই ২০২৪

বিশ্বকাপে নতুন সেনসেশন আফগান পেসার ফারুকি, তাঁর সাফল্যের রহস্য কী?

কিশোর ডাইজেস্ট ডেস্ক
১৫ জুন ২০২৪, ১৮:২১
আফগানিস্তানের পেস তারকা ফজলহক ফারুকি। ছবি: সংগৃহীত

আফগানিস্তানের পেস তারকা ফজলহক ফারুকি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে একের পর এক ম্যাচে বল হাতে আলো ছড়াচ্ছেন, নতুন বলে বিপক্ষ দলের ত্রাস হয়ে উঠেছেন। নতুন বলে আগুন ঝরিয়ে চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উইকেটশিকারিদের তালিকায় তিনি আছেন শীর্ষে। এখন পর্যন্ত খেলা তিন ম্যাচে তিনি নিয়েছেন ১২ উইকেট। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অন্য কোনো বোলার এখন পর্যন্ত ১০ উইকেটও নিতে পারেননি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩ ম্যাচে ৮ উইকেট নিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকা পেসার আনরিখ নর্কিয়া। ফজলহক ফারুকির সাফল্যের রহসী কী?

সবশেষ আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে একটি ম্যাচও খেলার সুযোগ মেলেনি ফজলহক ফারুকির। সেসময় হতাশায় আচ্ছন্ন না হয়ে দক্ষতা উন্নত করতে ঘাম ঝরিয়ে গেছেন আফগানিস্তানের বাঁহাতি পেসার। প্রতিনিয়ত নিজেকে শাণিত করেছেন। প্রচণ্ড পরিশ্রমের ফলে পেয়েছেন হাতেনাতে, বিশ্বকাপে।

প্রথম তিন ম্যাচ জিতে আফগানিস্তানের সুপার এইটে জায়গা করা নেওয়ায় ফারুকির রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ অবদান। এখন পর্যন্ত খেলা তিন ম্যাচে তিনি নিয়েছেন ১২ উইকেট। এর মধ্যে পাওয়ার প্লেতেই সাজঘরে পাঠিয়েছেন প্রতিপক্ষের সাত ব্যাটারকে। ভীষণ নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে তার গড় স্রেফ ৩.৫০ ও ইকোনমি ৩.৭০। উগান্ডার বিপক্ষে পাঁচটি ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চারটি শিকার ধরার পর শুক্রবার ত্রিনিদাদে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে তিনি ১৬ রানে পেয়েছেন ৩ উইকেট। দ্বিতীয়বারের মতো চলমান আসরে তিনি পেয়েছেন ম্যাচসেরার পুরস্কার।

আফগানিস্তানের পেস তারকা ফজলহক ফারুকি। ছবি: গেটি ইমেজেস

বয়সভিত্তিক পর্যায় থেকেই সুইংয়ের দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্য ছিল ফারুকির। পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে আফগানদের ৭ উইকেটের জয়ের পর দুই দিকেই সুইং করাতে পারদর্শী তারকা গণমাধ্যমকে বলেছেন, 'আমার চিন্তাপ্রণালী খুবই সরল। যখন আমি অনূর্ধ্ব-১৯ বা অনূর্ধ্ব-১৬ দলে খেলতাম,  তখন ভাবতাম যে, শারীরিকভাবে আমি বড় আকারের না। আমি বিশালদেহী ও লম্বা কেউ নই এবং খুব দ্রুতগতিতেও বোলিং করি না। সেসময় আমি শুধু আমার দক্ষতা উন্নত করার কথা ভাবতাম, যাতে অন্যদের থেকে আলাদা কিছু করতে পারি। আমি সুইং শিখতে চেয়েছিলাম আর এখন সেটা আমার জন্য সহজ।'

দলে প্যাট কামিন্স ও মার্কো ইয়ানসেন থাকায় আইপিএলে হায়দরাবাদের জার্সিতে মাঠে নামা হয়নি ফারুকির। তবে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত না হয়ে পড়ে পরিশ্রম করে গেছেন তিনি, 'দুর্ভাগ্যবশত আমি আইপিএলে কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ পাইনি। তবে আমি আমার দক্ষতা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছিলাম, যাতে দক্ষতা বাড়িয়ে আফগানিস্তানের জন্য আরও ভালো কিছু করতে পারি। মাঠে আমি শুধু আমার শতভাগ দেওয়ার চেষ্টা করি এবং আমার দক্ষতার ওপর আস্থা রাখি।'

এবারের বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের কোচিং প্যানেলে আছেন ডোয়াইন ব্রাভো। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক অলরাউন্ডারকে বোলিং পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড (এসিবি)। স্বীকৃত টি-টোয়েন্টির ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি ব্রাভোর সঙ্গে ফারুকির আগে থেকেই রয়েছে সখ্যতা। বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে একই দলে খেলেছেন দুজন।

ব্রাভোর কাছ থেকে ডেথ ওভারে বোলিংয়ের ব্যাপারে নানা পরামর্শ নিচ্ছেন ফারুকি, ‘তিনি পুরানো বলের বোলার, ডেথ ওভারের জন্য। কিন্তু আমি নতুন বলে যা কিছু করছি, সেটা আমারই নিজস্ব দক্ষতা। তিনি কেবল আমাকে সমর্থন করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, “তুমি ভালো করছ” এবং এটাই প্রধান বিষয়, সিনিয়র খেলোয়াড়দের কাছ থেকে সমর্থন পাওয়াটা। বিশেষ করে ডেথ ওভার ও চাপের সময়ে আমার কীভাবে বল করা উচিত, আমার কীভাবে স্লোয়ার বল ব্যবহার করা উচিত এবং আমি কীভাবে লেংথ বল ব্যবহার করব, এসব বিষয়ে তিনি আমাকে টিপস দিচ্ছেন।